একটি মুক্ত
পাঠচক্র আন্দোলন

সাহিত্য

চিন্তা স্বাধীনতার ইশতেহার

মহাপাজি মহাজন তাদের অশরীরী সম্পত্তি: ভূতেরা নাকি অশরীরী সত্তা। তাদের উপদ্রবের কি কোনো শেষ আছে? এই মনে করো, চকলেট খাচ্ছো, ভূতে কেড়ে নিয়ে গেল। এরকম তো কতোই হয়! কী বলো! হয় না? ও মা, বলো কি? তুমি তাহলে জেনে গেছ যে এইসব ভূত প্রেত আসলে ঢপ্, সব ভূয়া কথা?! আসলে ভূত-প্রেত বলে কিছুই নাই!! এরা শুধু ভয় দেখানোর জন্য মানুষের কল্পনায় এসেছে। বাহ! তাহলে তোমাকে তো বোকা বানানো গেল না। তাহলে অন্য একটা ফন্দি আঁটা যাক!

শোনো, তুমি যে গান শোনো বা ছবি দেখো সেগুলোও কিন্তু অশরীরী ব্যাপার। কেমন কান দিয়ে ঢুকে ঢুকে যাচ্ছে! আর কানের ভিতরে গেলেই মনে হচ্ছে যেন একটা আনন্দ আনন্দ লাগছে! আবার সুন্দর ছবিটা কেমন চোখের ভিতর ঢুকে যাচ্ছে? তারপর চোখ জুড়িয়ে যাচ্ছে! ঠিক না? অবশ্যই ঠিক। কিন্তু, ভূতের মত কি এদের আমরা ভয় পাই? না তো! বরং, এরা তো মজার ব্যাপার! কীরকম মিষ্টি মিষ্টি গান, আর বিচিত্র সব রং?

আচ্ছা, দূরে গান বাজলে আমরা কি না শুনে থাকতে পারি? ধরো, ওই গানটা - ‘কেমন বাঁশি বাজায় শোনো মাঠেতে রাখাল।’[1] সব গানই তো কানের ভিতরে ঢুকে যায়, কিচ্ছু করার থাকে না। কিন্তু, জানো, এইটা ভারী অন্যায়! বিশ্বাস হচ্ছে না? নাকি মন খারাপ হচ্ছে? ভাবছো গান শোনা ভারী অন্যায় হবে কেন?! এ আবার কিরকম কথা?! কিন্তু, শোনো, এইখানে আছে এক দুষ্ট বুদ্ধি। এর নাম হল ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টির ধারণা। কঠিন ঠেকছে? সহজ করে বুঝলে, গানবাজনা, ছবি, সিনেমা, লেখাজোখা, গপ্পো আর ভারী ভারী সব কথা - সবই আসলে সম্পত্তি! তাও নাকি মানুষের “অশরীরী সম্পত্তি”, মানে মানুষের পোষা ভূত। তারমানে, যে গান বানিয়েছে, সিনেমা বানিয়েছে বা ছবি এঁকেছে ওইটা তারই সম্পত্তি। তার অনুমতি ছাড়া ওইসব সম্পত্তি শুনে ফেলা, দেখে ফেলা বা বন্ধুকে শোনানোর জন্য বয়ে নিয়ে বেড়ানো সবই নাকি পঁচা কাজ! বোঝো ঠ্যালা! আমরা তো দাদীর কাছে কতোই গপ্পো শুনেছি। তারপরে, ওই যে, বাউলটা কতো যে গান শোনালো! আর, ঘরে বসে গুনগুন করে কতো গান গেয়েছি, সবসময় কি বলেছি এটা কার গান? মহা মুশকিল হলো না? আসলেই মহা মুশকিল। এতো ভারী অন্যায়, গান গাইতে দিবে না?

কিন্তু, কিচ্ছু করার নাই, জানো? ভূতেরা বিদায় নিলেও এই অশরীরী সম্পত্তির ধারণাটা পাকাপোক্তভাবে জায়গা করে নিয়েছে। এইটা এতোই পাকাপোক্ত ধারণা যে, আমাদের স্বাভাবিক যেসব প্রবৃত্তি - ধরো, গান শোনা, বইপড়া এইসবের উপর এক ধরণের নিয়ন্ত্রণ আনতে চাইছে। তোমরাই বলো তো, গায়েবী জিনিসটা বাতাসে মিশে গেলে আমরা কি করে তাকে রুখবো? আর রুখবোই বা কেন? কানে এসে লাগছে, বেশ তো লাগছে। এতে এতো আপত্তির কি হলো?
তাহলেই শোনো ভূতের গপ্পো। এই ভূত সত্যিই ভয় দেখায়। কারণ, এরা হল মানুষ ভূত। বাউল তো আর পয়সা চায় না। কারণ, সে তো আমাদেরই মতো ঘরের লোক। ঘরের বাইরেও তো তার সাথে আমাদের দেখা হয়। তার সাথে আমরা কতো মনের কথা বলেছি, কতো গান শুনেছি। নইলে আর সে আমার মনে কথা কেমন করে বলতে পারতো, বলো তো? কিন্তু, জানো কি, আরেক ধরণের লোক আছে, এরা হলো ব্যবসায়ী। যে-সে ব্যবসায়ী নয়, এক্কেবারে সওদাগর! এদের কাজই হলো, এর জিনিস তাকে, আর তার জিনিস একে গছিয়ে টাকাপয়সা কামানো।অবশ্য, আদতে সওদাগরি বা ব্যবসা খারাপ কিছু না,যদি সেটা একচেটিয়া না হয়ে থাকে। যদি সেটা সব সম্পত্তি কুক্ষিগত করার অভিপ্রায় নিয়ে না করা হয়। আর সেটাই হয়েছে বর্তমানের পুঁজিবাদী ব্যবসাদারিতে।

সওদাগরি কারবার কেমন করে চলে একটা উদাহরণ দিয়ে বুঝিয়ে দিচ্ছি। ধরা যাক, সুরবিতান হলো একটা গানের ব্যবসাদারী প্রতিষ্ঠান। এরা করে কি, বিভিন্ন শিল্পীর গান রেকর্ড করে বাজারে বিক্রি করে। এর বদলে শিল্পীকে অবশ্য পয়সা দেয়, কিন্তু, গানটার মালিকানা তাদের হয়ে যায়। তো, একজন শিল্পী মানুষের দুঃখ-দুর্দশা নিয়ে “বন্যার গান” নামের একটা গান লিখলেন এবং ওই সুরবিতান নামের ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে গানটি বাজারে ছেড়ে দিলেন (কি করবেন বলো? সব শিল্পীর পক্ষে তো আর একা একা গান বানানোর খরচ জোগানো সম্ভব না)। গানটি কিন্তু আমাদেরই দুঃখ দুর্দশার কথা বলছে। ধরা যাক, বন্যায় মানুষের কেমন কষ্ট হয় সেই কথা বলছে। এবারে হলো কি, অনেকবছর পরে তোমার দেশে বন্যা হল। তুমি করলে কি, বন্যার্তদের জন্য সাহায্য তুলতে একটা গানের অনুষ্ঠানের আয়োজন করলে। ওই অনুষ্ঠানে তুমি “বন্যার গান” গাইতে গেলে। এমন সময় হলো কি, মঞ্চে ওই গান বিক্রেতার লোকজন হাজির! তাদের বায়নাও বড়ো অদ্ভুত! তুমিতো ওদের কিনে নেওয়া গান গেয়ে লোকেদের জড়ো করেছ। তাই, তারা এখন গান শুনতে আসা লোকেদের কাছে তাদের তৈরি করা নতুন সাবানের বিজ্ঞাপণ প্রচার করবে যাতে সাবানটার কাটতি বাড়ে! কী মুশকিল বলো তো! তোমার উদ্দেশ্য তো সাবানের কাটতি বাড়ানো নয়, বন্যার্ত মানুষদের জন্য সাহায্য সংগ্রহ করা। কিন্তু, ওই নাছোড়বান্দা লোকেরা বিজ্ঞাপণ প্রচার করবেই। কারণ, তারা নাকি গানের মালিক! তুমিই বলো তো, গানটা তো আমাদেরই জীবনের কাহিনী নিয়ে বানানো। তাহলে, আমাদেরই দুঃখ-কষ্টের অনুভূতিগুলোর মালিক ওরা কিভাবে হয়? আবার, ওরা যদি গান কিনে নিয়ে গানের মালিক হয়ে যেতে পারে, আমরাও কেন গান কিনলে গানের মালিক হতে পারি না? আমরা যদি শেয়ার করলে ওরা মালিকানা দাবী করে সেখানে বিজ্ঞাপণ বসানোর দাবী করতে পারে, আমরা কেন গানটা কিনে নিলেও শেয়ার করতে পারব না? এ তো ভারী অন্যায়! কিন্তু, তোমার মন সায় না দিলে কি হবে, আইনকানুনও কিন্তু ওদের পক্ষেই কথা বলবে।

এবারে তুমি নিশ্চয়ই অবাক হয়ে যাচ্ছো? ভাবছো, এরকমও হয় নাকি? তাহলে বলি শোনো। তুমি নিশ্চয়ই ইউটিউবে গান শোনো? ওখানে যদি তুমি এরকম মহৎ কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে অন্যকোনো শিল্পীর গান করো তাহলে দেখবে সাথে সাথে ওই গানের মালিক এসে বিজ্ঞাপণ বসাতে চাইবে। এই ঘটনা আমাদের সাথেই ঘটেছে। আমরা, মানে স্বরব্যাঞ্জো ব্যান্ড একবার এরকম গান করতে গিয়ে ফেঁসে গেছিলাম। বোঝো ঠ্যালা! কেমন পাজি লোক!

কিন্তু, তবুও আইনকানুন ওদের পক্ষেই কথা বলে। আর, আইনকানুন যদি ওদের পক্ষেই কথা বলে, আমাদের কথা বুঝতে না চায়, তাহলে সে আবার কেমন আইন!? ঠিকই ধরেছ। এই আইনটাই খুব সমস্যাযুক্ত, গোলমেলে আর ভেজালে আইন। এই আইনটা আমাদের মানবীয় অনুভূতিগুলোকে বেচাবিক্রি করার অনুমতি দিয়েছে!

তোমাদের মনে কি কৌতুহল হচ্ছে? জানতে ইচ্ছা করছে এরকম আইনের রাজত্বই সবসময় ধরে পৃথিবীতে চলে আসছে কিনা? আসলে এইটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন। এই প্রশ্নটা যদি আমরা আইন-প্রণেতাদের করি তাহলে কিন্তু তারা বিপদে পড়ে যাবেন। কারণ, সত্যি কথা হল, ভূতুড়ে সম্পত্তির ধারণাটা প্রাকৃতিক নয়, মানুষের স্বাভাবিক প্রবৃত্তিজাত নয়।[2] বরং, শাসকশ্রেণীর হঠকারী বুদ্ধি দিয়ে বানানো একটা ধারণা। এটা একেবারেই নতুন একটা ধারণা। যখন থেকে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার ঘটেছে তখন থেকে এই ধারণাটা তৈরি হয়েছে। কাজেই, বুঝতেই পারছো, এই ধরণের সম্পত্তির ধারণার পেছনে নানান ধরণের দুষ্টু বুদ্ধি আছে। আমরা সেইসব দুষ্টুবুদ্ধিগুলো জেনে ফেলব। কিন্তু, তারও আগে আমরা জানব বোঝাপড়া, স্বাধীনতার ধারণা, আর, তার বিপরীতে উড়ে এসে জুড়ে বসা একটা রাক্ষুসে জিনিসের কথা।

২. বোঝাপড়া সুন্দর, স্বাধীনতা সুন্দর: আচ্ছা, আমরা তো সমাজে থাকি, তাইনা? আমাদের কতো আপন মানুষ চারিদিকে, খেয়াল করেছ? আমরা কি তাদের সাথে ঝগড়া করি নাকি মিলেমিশে থাকি? ঝগড়া যে একেবারে করিনা তা নয়, কিন্তু, বেশীরভাগ সময়ই তো মিলেমিশেই থাকি, তাইনা? তুমি খেয়াল করলে দেখতে পাবে, একজন মানুষের যতোজন মানুষের সাথে ঝগড়া তারচেয়ে বরং বেশী মানুষের সাথেই বন্ধুত্ব! কী আশ্চর্য! মজা না? এর মানে হল, আমরা সমাজে সবাই মিলেমিশেই বাস করি। আর, মিলেমিশে বাস করতে গেলে তো বোঝাপড়া করতে হয়, তাইনা? আমরা নিশ্চয়ই প্রতিবেশীকে কষ্ট দেই না, সহপাঠীকে কষ্ট দেই না, বন্ধুকে কষ্ট দেই না, ভালোবাসার মানুষকে কষ্ট দেই না? বন্ধুরা, তারপরে প্রতিবেশীরা, সহপাঠীরাও নিশ্চয়ই আমাদের কষ্ট দিতে চায় না? আর যদি একটু মন কষাকষি হয়েই যায়, আমরা তো আবার মিলঝুল করে নেই। এই যে একে অপরের সুবিধা-অসুবিধা বুঝে বুঝে, স্বাধীনভাবে, মনের মতো করে কাজকর্ম করতে দেওয়ার যে পদ্ধতি আমরা সবসময় মেনে চলি এটাই হল বোঝাপড়া।

তাহলে, বুঝতেই পারছো, বোঝাপড়া করতে হলে আমরা স্বাভাবিকভাবেই নিজেরা নিজেদের নিয়ম-কানুন তৈরি করি। এই নিয়মকানুনগুলো আমরা নিজেরাই নিজেদের স্বার্থে মেনে চলি। যেমন: কেউ হয়তো ঝাল খেতে পছন্দ করে, মিষ্টি পছন্দ করে না। আবার, তুমি হয়তো মিষ্টি পছন্দ করো, ঝাল একদম খেতে পারো না। তোমাকে কেউ এসে জোর করে ঝাল খাইয়ে দিলে নিশ্চয়ই তুমি কষ্ট পাবে। তেমনি তুমি তোমার যে বন্ধুটা মিষ্টি পছন্দ করে না তাকে জোর করে মিষ্টি খাইয়ে দিলে সে নিশ্চয়ই কষ্ট পাবে? তখন কি হবে? তোমাদের মধ্যে সম্পর্ক নষ্ট হবে, কথা বলা বন্ধ হবে, মন খারাপ হবে, একা একা থাকতে হবে আরও কতো কি!

অন্যকে কষ্ট দিলে যে নিজেকেও একা হয়ে যেতে হয়, কষ্ট পেতে হয়! অন্যকে স্বাধীনতা না দিলে নিজে স্বাধীনতা কেমন করে পাবো, বলো তো? আর, স্বাধীনতা না থাকলে কি কোনো আনন্দ আছে? তাহলে, আমরা বুঝতে পারলাম, আমরা একসাথে মিলেমিশে থাকতে গিয়ে নিজেরা নিজেরাই বোঝাপড়া করি, আর নিজেদের নিয়মকানুন নিজেরা-নিজেরাই তৈরি করি, মেনেও চলি যাতে অন্যের স্বাধীনতা নষ্ট না হয়।

কিন্তু, এমন একটা প্রতিষ্ঠান আছে, যারা আমাদের এই বোঝাপড়ার মধ্যে মাতব্বরী করতে চায়। এই মাতব্বরী করার জন্য তারা আবার আমাদের অনুমতি আদায় করে নেয়। বেশ তো আমরা ছোট্ট ছোট্ট সমাজে বা গ্রামে থেকে, নিজেরা নিজেরা বোঝাপড়া করে, দরকারি বিভিন্ন জিনিসপত্র বানিয়ে, নেচে-গেয়ে আনন্দ করে, একে অপরকে সহযোগিতা করে আর ভালোবেসে বেঁচে থাকতে পারি। আমরা কেন কিছু মানুষের উপরে আমাদের শাসন করার ক্ষমতা দেই?

এটা করতে আমরা রাজি হয়ে যাই অনেককিছু ভেবে বা কখনো ভয় পেয়ে বা কখনো নিরুপায় হয়ে। তোমরা ভাবছো এমন কোন প্রতিষ্ঠান আছে, যারা শুধু বসে বসে মাতব্বরী করতে চায়? একটু ভেবে দেখলে বুঝতে পারবে, এই প্রতিষ্ঠানের নাম হল রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা। যদিও রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা এখন আমাদের আলোচনার বিষয় নয়, এখানে আমি শুধু তোমাদের অল্প একটু জানিয়ে রাখলাম, যাতে তোমরা আগ্রহী হয়ে নিজেরাই রাষ্ট্রব্যবস্থার হঠকারী দিকগুলো নিয়ে খোঁজখবর নিতে পারো। রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা কেমন করে শাসন করে, ভয় দেখায় আর আমাদের সম্মতি উৎপাদন করে সেজন্য তোমরা কিন্তু চাইলে পড়াশোনা করতে পারো।

৩. শেয়ারিং মানেই আনন্দ: আমরা কিন্তু বুঝতে পারছি, গানবাজনা, বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের কায়দাকানুন, খাবারের রেসিপি, বৈজ্ঞানিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা, তারপরে কবিতা, গল্প, উপন্যাস সবকিছুকেই মানুষ “অশরীরী সম্পত্তি” নাম দিয়েছে। এরপর সেগুলোকে কুক্ষিগত করেছে। খেয়াল করে দেখো, এগুলোর অস্তিত্ব শব্দে, লেখায় ইত্যাদি মাধ্যমের মধ্যেই থাকে, যা চোখ-কান দিয়ে আমাদের মাথায় ঢুকে যায়। জিনিসগুলোকে কেমন যেন চেনা চেনা মনে হচ্ছে না? ঠিক ধরেছ! এরা হল ‘তথ্য’; যা আমাদের জীবনে অক্সিজেনের মতোই গুরুত্বপূর্ণ। তাই যদি হবে তাহলে, অক্সিজেন তো কিনে শ্বাস নিতে হচ্ছে না, প্রকৃতিতে আমরা বুকভরে শ্বাস নেই। একটু খেয়াল করে দেখো তো, তথ্যও তো প্রাকৃতিক। সবকিছু থেকেই তথ্য কেমন ঠিকরে ঠিকরে বেরোচ্ছে? কে তাকে রুখবে? কিন্তু, অক্সিজেনের মত তথ্যও উন্মুক্ত থাকে না কেন? আর, তথ্য ছাড়া আমরা চলব-ফিরব কেমন করে? আমাদের চোখ-কান খোলা থাকলে তথ্য তো আপনিই চোখে পড়বে, কানে ঢুকবে, হৃদয় দিয়ে অনুভব করব। তাহলে তো আমরা সবাই চোর হয়ে যাব, কারণ, কার না কার মালিকানার তথ্য আমাদের চোখে-কানে ঢুকে যাবে কে জানে! আর সেই নিয়ে ভাবতে গেলে তো পাগল হওয়ার জোগাড় হবে! একটা মজার উদাহরণ দেওয়া যাক।

আর্কিটেক্টরা তো বাড়িঘরের ডিজাইন করেন আমরা সবাই জানি। তাদের ডিজাইনের কিন্তু কপিরাইট আছে। মানে, যেকেউ ইচ্ছা করলেই তাদের ডিজাইন নকল করে আরেকটা বাড়ি তৈরি করতে পারবেন না, বা তাদের ডিজাইনের ছবি তুলে নিয়ে সেই ছবি অন্যকোথাও ব্যবহারও করতে পারবেন না। তারমানে, আর্কিটেক্টদের সবসময় কারা তাদের ডিজাইন নকল করলো, কারা তাদের ডিজাইন করা বাড়ির ছবি তুলে নিয়ে গেল ইত্যাদি নজরে রাখতে হবে। যদি কেউ নকল করে তাহলে সাথে সাথে গিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা ঠুকে দিতে হবে। কিন্তু, ধরো তুমি একটা বিল্ডিঙের সামনে দাঁড়িয়ে পয়লা বৈশাখের দিনে একটা ছবি তুলে ফেললে। তারমানে অবশ্যই তুমি ওই বিল্ডিঙের ডিজাইনারের কপিরাইট নষ্ট করলে। ব্যস, ঐ স্থপতি করে বসলেন কপিরাইটের দাবী! কিন্তু, এটা কি কোনো কাজের কথা হলো নাকি?

এভাবে চললে তো ছবি থেকে শুরু করে ভিডিও, চলচ্চিত্র, ডকুমেন্টারি তারপরে ধরো, ইউটিউব, ইন্সটাগ্রাম, ফ্লিকার, ফেসবুকসহ যাবতীয় মাধ্যম বন্ধ করে দেওয়া উচিত। আর, স্থপতিদেরও ডিজাইন করা মাথায় তুলে সারাদিন ঐ কপিরাইট ক্লেইম নিয়েই পড়ে থাকা উচিত। এভাবে কোন সময় যে কার কপিরাইট কিভাবে আমরা হয়তো নিজ অজান্তেই নষ্ট করতে পারি তার ইয়ত্তা নেই। কপিরাইটের মত কৃত্রিম আর দুর্বল অধিকারের ধারণা বোধহয় আর কোথাও নেই।

আমাদের বর্ণমালা যদি বিক্রি হয়ে যায়, কিছু মানুষ যদি আমাদের লেখার বর্ণমালার মালিকানা দাবী করে বসে তাহলে সেটা কি অন্যায় হবে না? অবশ্যই হবে! বর্ণমালা, শব্দমালা, ধ্বনি, রং সবই তো মুক্ত। মানুষ কি এদের মালিক হতে পারে? তাহলে, যে বর্ণমালার কোনো মালিকানা নাই সেই বর্ণমালা দিয়ে তৈরি করা গল্প, উপন্যাস, বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারের কায়দাকানুনের মালিকানা কেমন করে থাকে?

আসল কথাটা তাহলে এবার বলেই দেই। আসল কথা হল, তথ্য এক ধরনের ক্ষমতা। এবং, অন্যান্য সব ক্ষমতার মত একেও কিছু মানুষ কুক্ষিগত করে রাখতে চায়। নানান কারণে তথ্যকে কুক্ষিগত করে রেখে নিয়ন্ত্রণ করার দরকার পড়ে। মানুষে মানুষে যোগাযোগ হলে তথ্য আদানপ্রদান হয়। সেই তথ্যই যদি উন্মুক্ত হয়ে যায় তাহলে গোপন বলে আর কিছুই থাকবে না। আর, গোপন না থাকলে চুপচুপ করে শাসকেরা শাসন করবে কিভাবে?

আবার, দেখো, মানুষে মানুষে যোগাযোগ হল সবথেকে স্বাভাবিক ব্যাপার। আমরা একজন আরেকজনের সাথে মিশবো, কথা বলব, নতুন নতুন জিনিস জানবো, জানাবো এটাই তো স্বাভাবিক। যোগাযোগ হলেই মানুষ তথ্য আদান-প্রদান করে। অর্থাৎ, তথ্য অনেক বেশী দরকারী সেটাতো বুঝতেই পারছো। আবার, তথ্যকে ধরে রাখাও যায় না, সে তার মতো চলে যায়। কিন্তু, দুষ্ট লোকেরা দেখলো একে নিয়ন্ত্রণ তো করা সম্ভব! সুতরাং, এতে ব্যবসার একটা সুযোগ কিন্তু উঁকি দিচ্ছে। তথ্যকে যদি কোনোভাবে কুক্ষিগত করে বিক্রি করা যায় তাহলে প্রচুর টাকা আয় করা যাবে। কারণ, মানুষ তথ্য আদান-প্রদান না করে থাকতে পারবে না। তাইতো তথ্যকে ‘ইন্টেলেকচুয়াল প্রপার্টি’ নাম দিয়ে বন্দী করার বুদ্ধি আবিষ্কার করেছে দুষ্ট মানুষেরা।

যুগ যুগ ধরেই বইপত্রের মধ্যে বিশ্বের সমস্ত বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার, কবিতা, গল্প, মানুষের জীবনের নানান কথা সবকিছুই লেখা হচ্ছে, তাইনা? আবার, আধুনিক যন্ত্রপাতির যুগে সেইসব বইপত্রগুলোর ডিজিটাল সংস্করণও তৈরি করা হচ্ছে। কিন্তু, জানো কি, এইসব তথ্যকে দুষ্প্রাপ্য করে রেখেছে কয়েকটা বড় বড় বোয়াল মাছের মত রাক্ষুসে সওদাগর ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান। তুমি যদি পৃথিবীর দারুণ দারুণ আর মজার মজার সব আবিষ্কারের কায়দাকানুন শিখে ফেলতে চাও তাহলে তোমাকে ওইসব দুষ্ট ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে বহু টাকা খরচ করে সেসব বইপত্র, দলিল-দস্তাবেজ কিনে নিতে হবে।

আর বলো তো, আমাদের সবার কি অতো টাকা আছে? আর অতো টাকা থাকাও কি ভালো কথা? সব টাকা যদি নিজেই নিয়ে নেই তাহলে অন্য মানুষেরা গরীব হয়ে যাবে, তাইনা? এমনিতেই তোমরা জানো, আমাদের দেশটা ছোট্ট একটা দেশ আর আমাদের দেশের টাকাপয়সাও কম। আর ওদিকে জ্ঞান-বিজ্ঞানের সমস্ত জিনিস বন্দী করে রেখেছে ধনী দেশের ওইসব দুষ্ট ব্যবসায়ীরা আর রাষ্ট্রগুলো। আমাদের টাকাপয়সা না থাকায় আমরা ওইসব দামী দামী জ্ঞান-বিজ্ঞানের বইপত্র পাই না। এটা কি বৈষম্য নয়? এটা কি কোনো ভালো কাজ হতে পারে?

এগুলো স্রেফ গুণ্ডামী। বড় কর্পোরেশন গুণ্ডামী করে, বড় বড় রাষ্ট্রগুলো গুণ্ডামী করে। রাষ্ট্রীয় গুণ্ডামীর একটা উদাহরণ দেই। সেদিন পত্রিকা খুলেই দেখি ভারত বাংলাদেশের জামদানি, নকশিকাঁথা ও ফজলি আমসহ ৬৬টি পণ্যের প্যাটেন্ট করে নিয়েছে! বোঝো ঠ্যালা![3]

কিন্তু, দুষ্ট ব্যবসায়ীরা এই ভূতুড়ে সম্পত্তির পক্ষে এক ধরণের সাফাই গেয়ে একে জায়েজ করার ধান্ধা করে। তুমি যখনই এই বৈষম্যের বিরুদ্ধে কথা বলতে যাবে তখনই তারা তোমাকে উল্টো উদ্ভট যুক্তি দিয়ে দিবে। তারা সবার প্রথমেই বলবে, কপিরাইট না থাকলে সব আবিষ্কার থেমে যাবে। কপিরাইট, পেটেন্ট এসব নাকি এই প্রতিযোগীতার দুনিয়ায় আবিষ্কারে উৎসাহ দেয়! এই কথার মধ্যে শুভংকরের ফাঁকি আছে। মানুষ মোটেও প্রতিযোগীতাপ্রবণ প্রাণী নয়। পৃথিবীতে বেশীরভাগ প্রাণীই সহযোগিতাপ্রবণ। প্রতিযোগীতাকেই এক নম্বর কথা করে তুলেছে এইসব ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানগুলোই। সুতরাং, প্রতিযোগীতামূলক পৃথিবীটা আসলে তাদেরই তৈরি। তারাই পৃথিবীর বেশীরভাগ সম্পদকে লুটে নিয়ে বৈষম্য তৈরি করেছে। এই বৈষম্য থেকেই তৈরি হয়েছে উদ্ভট প্রতিযোগিতার দুনিয়ার। এর নাম পুঁজিবাদ।তবে, প্রতিযোগিতা সবসময় খারাপ নয়। প্রতিযোগিতাও স্বাভাবিক। যতক্ষণ সেটা আনন্দের, স্বতঃস্ফূর্ত। যতক্ষণ সেটা পেশাদার নয়,হীন উদ্দেশ্যতাড়িত নয়।

কপিরাইট, পেটেন্ট মানেই তো গোপন করা, গোপন রাখা, শেয়ার না করার ব্যাপারস্যাপার। আর মানুষ তো শেয়ার করতেই পছন্দ করে, গোপন করতে অপছন্দ করে। কোনো মজার জিনিস জানার পরেও গোপন করলে মানুষের কষ্ট হয়, বুক ফেটে যায় কথা বলার জন্য। জ্ঞান এবং তথ্যও যে লুকিয়ে রাখার মতো জিনিস হতে পারে এটা মানুষ অনেকদিন পর্যন্ত ভাবতেও পারে নাই। কারণ, স্বাভাবিকভাবেই তা মানুষের বোঝাপড়া আর বিকাশের ক্ষেত্রে অসুবিধাজনক ব্যাপার। শেয়ারিংই যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে সেখানে নতুন নতুন জিনিস আবিষ্কার হবে কিভাবে? এটাই হলো শুভংকরের ফাঁকি। আসলে, শেয়ারিং থাকলে আবিষ্কারও থাকবে তবে ব্যবসায়ীদের ব্যবসাটা থাকবে না। তাই, এই কুযুক্তি মানুষের মনের মধ্যে ঢুকিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করে তারা। মজার একটা উদাহরণ দেই।

নিকোলা টেসলা আর টমাস এডিসনকে তো আমরা সবাই কমবেশী চিনি, দুই বিখ্যাত বিজ্ঞানী। টেসলা ছিলেন ক্ষ্যাপাটে এবং খামখেয়ালী। তিনি নাকি তাঁর সব সৃষ্টিশীল কাজকর্ম মনে মনেই করে ফেলতেন। সারাদিন ওইসব ভাবনাচিন্তা নিয়েই পড়ে থাকতেন, নিজমনেই তাঁর চিন্তাগুলোর খুঁতও খুঁজে খুঁজে বের করে ফেলতে পারতেন। আরেকদিকে, এডিসন করতেন কি, অন্যের আইডিয়া থেকে উৎসাহিত হয়ে নতুন কিছু বানিয়ে ফেলতেন। আর, তারপরেই পেটেন্ট অফিসে দিতেন ছুট্! তোমরা আবার ভেবে বসো না অন্যের আইডিয়া থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে নিজে নতুন কিছু বানানো পঁচা কাজ। এটা সম্পুর্ন স্বাভাবিক একটা ঘটনা, যেকোনো আবিষ্কারের এটা একটা স্বাভাবিক উপায়। টেসলা যেমন নিজমনেই কাজটা করতেন এডিসন তা করতেন না। কিন্তু, দুজনের কাজের পদ্ধতি আলাদা কিন্তু দুজনেই কিন্তু নতুন নতুন আবিষ্কারের ওস্তাদ ছিলেন।

তবে, দুজনের মাঝে সবথেকে হাস্যকর এবং উদ্ভট জিনিসটার নাম হল পেটেন্ট অফিস। কেন? টেসলা এমনই খামখেয়ালী ছিলেন যে তিনি অনেক আবিষ্কারের পেটেন্ট করানোর প্রয়োজনই মনে করেন নাই। তাঁর কাছে আবিষ্কারটাই বড় কথা ছিল। তাই, তাঁর কাজের বেশীরভাগই মানুষের জন্য উন্মুক্ত ছিল।[4] অপরদিকে এডিসনের বিভিন্ন আবিষ্কার এখনো ব্যবসায়ীদের দখলে।[5]

সুতরাং, বুঝতেই পারছো, মিছেমিছিই আমাদেরকে এরা ভয় দেখায়। তবে, তাদের যুক্তি যদি তুমি না মানো তখন তারা তোমাকে চোর সাব্যস্ত করার জন্য আইনের আশ্রয় নিবে।

৪. আইনকানুনও যখন পক্ষে নয়: কিন্তু, নিঃসন্দেহে জ্ঞানকে কুক্ষিগত করে রাখা অত্যন্ত গর্হিত কাজ, এবং কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। কিন্তু, আইনকানুন সবই তাদের পক্ষে। এইসব ব্যবসায়ীদের গালভারী নাম হল কর্পোরেশন। এই কর্পোরেশনগুলো আবার একেকজন আস্ত মানুষের মর্যাদা পেয়ে থাকে![6] আর জ্ঞানের উপরে যে মালিকানা সেগুলোকে এরা নাম দিয়েছে কপিরাইট, পেটেন্ট, ট্রেডমার্ক এইসব। কর্পোরেশনগুলো যেহেতু “কৃত্রিম মানুষ” আর জ্ঞান-বিজ্ঞানের তথ্য যেহেতু “অশরীরী সম্পত্তি” তাই এই কর্পোরেশনগুলোই কপিরাইটের ধারক-বাহক বনে গেছে। আর, জ্ঞানের ব্যবসাই তাদের অর্থের বিরাট উৎস। তাই, আমরা অনেকে ভেবে বসি এটাই বোধহয় স্বাভাবিক। আবার অনেকে বুঝতে পারেন যে এসব ঘোরতর অন্যায়, এসব হল সব মানুষকে জ্ঞান-বিজ্ঞান থেকে বঞ্চিত করার ফন্দি। কিন্তু, পরক্ষণেই তারা ভাবেন, "আমরা আর কিই বা করতে পারি?"

কিন্তু এমনও মানুষ আছেন যারা এই পরিস্থিতি পরিবর্তনে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। গেরিলা ওপেন অ্যাকসেস মুভমেন্ট (Guerilla Open Access Movement)[7] হল এমনই একটা আন্দোলন। আন্দোলনের প্রস্তাব দুই ধরণের - প্রথমটা হল, পৃথিবীর যতো বিজ্ঞানী, সমাজবিজ্ঞানী, কবি, গায়ক, চলচ্চিত্র নির্মাতা, লেখক আছেন তাঁদের নিজ নিজ সৃষ্টিকে সব মানুষের জন্য উন্মুক্ত করার আহবান। আর, দ্বিতীয়টি হল, এই যে উদ্ভট আইনকানুন দিয়ে কর্পোরেশনগুলো একচেটিয়া ব্যবসা করে যাচ্ছে সেই আইনকানুনগুলোকে ভাঙা এবং তথ্যগুলোকে নানান কৌশলে উন্মুক্ত করা।

তবে, আইন ভাঙার প্রস্তাবের আগে তোমাদের মনে হয়তো প্রশ্ন আসবে, কেউ কি পেশা হিসেবে সংগীত, গবেষণা, ছবি আঁকা, লেখালেখি করা এইসবকে নিতে পারবে না? কেউ তো গান বানিয়ে টাকা দাবী করতেই পারে, বা বই লিখে টাকা দাবী করতেই পারে।

অবশ্যই তাঁরা এই দাবী করতেই পারেন। যেকোনো পরিশ্রমেরই মূল্য আমাদের দিতে হবে। কিন্তু, আমাদের এখনকার সিস্টেমটা, মানে পুঁজিবাদী সিস্টেমটা কিন্তু শিল্পী, কবি, লেখক, গবেষক সবাইকে প্রথমে বঞ্চিত করার চেষ্টা করে, অথবা তাদের বহু পয়সা দিয়ে কিনে নিয়ে গোলাম বানিয়ে রাখতে চায়। এর ফলাফল কিন্তু শিল্পী-গবেষকদের জন্য বেশীরভাগ সময়েই ভালো হয় না, বিশেষ করে আমাদের মত দরিদ্র দেশে।

আমরা অনেকসময়ই দেখি, কেউ রাতারাতি বিখ্যাত গায়ক, নায়ক বা কবি হয়ে গেলেন। তার অনেক টাকাকড়ি হলো, নাম-যশ-খ্যাতি হল। কিন্তু, একটা সময় পরে তিনি যখন বৃদ্ধ হলেন, তার গানের গলা ভাঙলো, চামড়া গেলো কুঁচকে, শরীরে বাঁধলো নানান রোগের বাসা, সেই দুঃসময়ে আর কেউ তার পাশে নাই! এরকম তো আকছারই হচ্ছে, তাইনা? একসময় যারা তাকে মাথায় তুলে রেখেছে তারাই পরে আর তার খোঁজ নেয় না। শিল্পীরাও অবাক বিস্ময়ে আবিষ্কার করেন যে, তারা আসলে বড় বড় কর্পোরেট টিভি চ্যানেল, মিডিয়া-ইণ্ডাস্ট্রিরই কেনা গোলাম হয়ে ছিলেন। যতোদিন তাদের আবেদন ছিল এইসব বড় বড় চ্যানেলগুলো তাদের ব্যবহার করেছেন। এখন তার আবেদন নাই, তাই আর কদরও নাই। তার জায়গা দখল করে নিয়েছেন অন্যকেউ। কিন্তু, মাত্র কিছুদিন আগেও কিন্তু শিল্পীদের অবস্থা এমন ছিলো না। তারা ছিলেন ঘরের মানুষ, তারা আমাদের জন্য গান গাইতেন, আমরাও তাদের জন্য সাধ্যমতো দেখাশোনা করতাম। বাউলেরা গাইতেন, আমরা তাদের খাবারের ব্যবস্থা করে দিতাম। এমনকি বাউলেরা নিজেরাও কাজকর্ম করতেন। তোমাদেরকে কবিয়াল রমেশ শীলের কথাটাই যদি বলি, তোমরা হয়তো বুঝবে, কবি-সাহিত্যিকরা একটা সময়ে জমিদারদের গোলামী করতে করতে এখন এসে কর্পোরেশনের গোলামী করতে কেমন করে বাধ্য হলেন। কবিয়াল রমেশ শীল বলছেন, জমিদারী ব্যবস্থা চালু হওয়ার পর গ্রামের সব চাষীরা তাদের জমিজমার মালিকানা হারালেন। তার বদলে জমিদার সব জমির মালিক হয়ে গেলেন। ফলে, চাষীরা হয়ে পড়লেন অসহায়, গরীব। তখন তাদের নিজেরই পেটে ভাত জোটানো কষ্ট হয়ে পড়লো। এতে, গ্রামের কবিয়াল-বাউলদেরও দেখাশোনার ভার তারা আর বইতে পারলো না। ফলে, পেটের দায়ে কবিয়ালদের ছুটতে হলো জমিদারের কাছে। জমিদারেরা তো মহা ছ্যাঁচোড়। তারা করলো কি, মোটা অংকের টাকার লোভ দেখিয়ে কবিয়ালদের অশ্লীল গান বাঁধতে, অশ্লীল ভঙ্গিমায় নাচতে আর মেয়েদের নিয়ে বাজে ভাষায় গান করতে বাধ্য করলো। তোমরা যদি হেমাঙ্গ বিশ্বাসের “গানের বাহিরানা” বইটা পড়ো তাহলে সবিস্তারে এসব জানতে পারবে।[8]

তাহলেই বোঝো, কেমন করে আমাদের দেশের মানুষ গরীব হলো, আর, তার সাথে সাথে বাউল-কবিয়ালেরাও বাধ্য হলেন জমিদারের গোলামী করতে। তাইতো বলছি, শিল্পী, আঁকিয়ে, গবেষক যদি তার সৃষ্টিশীলতাকেই পেশা হিসেবে নিতে চান তাহলে এইরকম সময়ে কর্পোরেশনের দাসত্ব করাই তার একমাত্র নিয়তি হয়ে দাঁড়াবে। কিন্তু, এর কোনো বিকল্প নাই? অবশ্যই আছে। আমরা তো আর পুরাতন সমাজে ফিরে যেতে পারবো না, তবে পুরাতন সমাজের ব্যবস্থাটিকে আধুনিক সময়ের আঙ্গিকে নতুন করে তৈরি করতে পারবো। আবার, তুমি যখন নতুন করে বিকল্প রাস্তায় হাঁটতে চাইবে তখন এইসব বদমায়েশ কর্পোরেশনগুলোর পোষা বুদ্ধিজীবিরা এসে বলবেন, তোমার মাথাটা কি পুরোই নষ্ট হয়ে গেছে? তোমার চিন্তাভাবনাকে তারা “উদ্ভট” “অবাস্তব” “ভয়ংকর” এইসব বলে গালি দিবে, ভয় দেখাবে। কিন্তু, তবুও আমাদের বিকল্প ভাবতেই হবে, কারণ, স্বাধীনতাই যদি না থাকে তাহলে আর জীবনে কি মজা থাকলো?

সবার প্রথমেই বুঝতে হবে, সৃষ্টিশীল কোনো কাজ, যেমন: গান তৈরি করা, ছবি আঁকা, কবিতা লেখা বা গবেষণা করা - কখনো পেশা নয়। কারণ, তুমি নিশ্চিতভাবে বলতে পারবে না যে, তোমার কোন গানটি কখন তৈরি করতে পারবে, কখন তুমি কোনো নতুন জিনিস আবিষ্কার করতে পারবে। এসবের কি কোনো জানাশোনা রাস্তা আছে? জানাশোনা রাস্তা নাই বলেই তো এসব হলো আবিষ্কার, নতুন কিছু করা। আর জানাশোনা পথে জানাশোনা কাজ করাই হল পেশা। যেমন: কারখানায় বস্তা তৈরি করার নির্দিষ্ট নিয়ম আছে, সেটা জেনে গেলেই হাজারে হাজারে বস্তা তৈরি করে ফেলা যায়। সুতরাং, কেউ বস্তা তৈরি করাকে পেশা হিসেবে নিতেই পারেন। কিন্তু, আবিষ্কার করার কি কোনো জানাশোনা রাস্তা আছে? এসব নিয়ে অবশ্যই বিস্তর বিতর্ক আছে, সেসবকেও আমাদের বুঝতে হবে। তবে, আমাদের কাছে পেশা আর নেশার মধ্যকার পার্থক্যটুকু নিশ্চয়ই পরিষ্কার হয়েছে। যদি হয়েই থাকে, তাহলে, আমরা এবারে সিদ্ধান্তে আসতে পারি যে, কর্পোরেট দানবদের দুনিয়ায় সৃষ্টিশীল কাজকে পেশা হিসেবে নিলেই গোলামী করার ধরা খেতে হবে। সুতরাং, আমাদের বিকল্প ভাবতে হবে।

বিকল্প শুধু একটা ভাবলে চলবে না। কারণ সবকিছুতেই একটা মাত্র পথ বের করেই সন্তুষ্ট হলে সেই পথের সমস্যাগুলো কাটিয়ে তোলা কঠিন হয়ে পড়ে। তাই বৈচিত্র সুন্দর, বৈচিত্র কাম্য। বিচিত্র সব বিকল্প রাস্তার মধ্যে একটি হল, ক্রিয়েটিভ কমন্স লাইসেন্স। এটা হলো এক ধরণের চুক্তি। এই চুক্তি হবে শিল্পী আর শ্রোতার মধ্যে বা লেখক ও পাঠকের মধ্যে। মোটকথা, এই চুক্তির মাঝে কোনো মাতব্বর কর্পোরেশন থাকবে না। এই চুক্তি অনুসারে গায়ক তার গানকে শেয়ার করার অনুমতি দিতে পারেন, সাথে সাথে বলে দিতে পারেন গানটি কিভাবে বিক্রি করা যাবে, কিভাবে বিক্রি করা যাবে না। গায়ক চাইলে ফ্রিতে গানটা দিয়ে দিতে পারেন, অথবা, অর্থের বিনিময়েও গানটি দিয়ে শুনতে দিতে পারেন। সেই অর্থ তাহলে সরাসরি গায়ক পাবেন, কোনো মাতব্বর কর্পোরেশন তা লুটে নিতে পারবে না। ঠিক যেমনটা আমাদের দাওয়ায় বসে বাউল গান করলে আমরা তাকে আপ্যায়নের ব্যবস্থাও করি, তেমন।

আবার, আরও একটি ব্যবস্থা হলো, শিল্পীদের সংঘ তৈরি করা। এই সংঘের কাছ থেকে গান নিয়ে যতোখুশী বাজানো যাবে, যাকে খুশী দেওয়া যাবে, কিন্তু বিনিময়ে সংগঠনকে একটি বাৎসরিক চাঁদা দিতে হবে। এই চাঁদা শিল্পীদের মাঝে বন্টন করা হবে বিভিন্ন হিসাবে। এরকম একটি সংগঠনের নাম হলো আমেরিকান সোসাইটি অফ কম্পোজারস, অথরস এন্ড পাবলিশার্স বা সংক্ষেপে ASCAP.[9]

আর, শুধু গান করাকে বা লেখালেখি করাকে বা গবেষণা করাকে পেশা হিসেবে না নিয়ে কেউ এমন সংঘ তৈরি করতে পারেন যারা মানুষের জন্যই সৃষ্টি বা গবেষণা করবেন এবং তাদের সৃষ্টিকর্ম আর আবিষ্কারকে জনস্বার্থেই উন্মুক্ত করবেন।

আরও একটি রাস্তা হল, রাষ্ট্র নামক দানবটির রাক্ষুসে শাসকদের ক্ষমতাকে খর্ব করার জন্য কাজ করতে হবে। খেয়াল করলে দেখবে ক্ষমতা সবসময় একটা কেন্দ্র থেকে পরিচালিত হয়। ক্ষমতাচর্চার পরিধি যতো বড় হবে শাসকও ততো স্বৈরাচারী হয়ে উঠবেন। কারণ, তার তখন বেশী অস্ত্রশস্ত্র, পাইকপেয়াদা, সৈন্যসামন্ত, মন্ত্রী-উজির, চাটুকার ও গুণ্ডা প্রয়োজন। সুতরাং, ক্ষমতা বলয়কে আস্তে আস্তে ছোটো করে আনতে হবে। শাসকের শাসন করার অঞ্চলকে কমিয়ে আনতে হবে। তাকে বাধ্য করতে হবে আরও বেশী উদার হতে। ছোট্ট ছোট্ট স্বয়ংসম্পূর্ণ অঞ্চলভিত্তিক শাসনব্যবস্থা তৈরি করা যেতে পারে, যেখানে সবাই সবার সাথে সামাজিকভাবেই সংযুক্ত থাকতে পারবে। প্রতিটা উৎপাদন তখন হবে সামাজিক উৎপাদন। ফলে, আমাদের তখন শিল্পী-সাহিত্যিক-গবেষকদের দেখেশুনে রাখা, তাদের কাজে উৎসাহ দেওয়াও সহজ হবে।

এই লক্ষ্য অর্জন করা সময়সাপেক্ষ ব্যাপার। এজন্য শাসনব্যবস্থার মূলে আমাদের অনবরত আঘাত করতে হবে। আমাদের মধ্যেই অনেকেই আছেন যারা বিদেশে গিয়ে এইসব বড় বড় কর্পোরেশন আর বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বন্দী করে রাখা দারুণ দারুণ সব বইপত্র পড়ার সুযোগ পেয়ে থাকেন। ওপেন অ্যাকসেস মুভমেন্ট তাদেরকে আহবান জানাচ্ছে তারা যেন তাদের এই সুবিধাটুকু শুধু নিজেরা ভোগ না করে সবার সাথে শেয়ার করেন। কারণ, পৃথিবীর বেশীরভাগ মানুষ সেখানে যেতে পারেন না, কিন্তু, তারা ভাগ্যবান হওয়ায় সেসব বইপত্র পড়ার সুযোগ পেয়েছেন। তাই, তারা যেন আমাদের জন্য সেইসব বইপত্রের ডিজিটাল সংস্করণ ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেন।

এই কাজকে আবার আইনের চোখে 'পাইরেসি' বা 'চুরি' হিসেবে দেখা হয়। ভাবখানা এমন, জ্ঞানের বিরাট ভাণ্ডার মুক্ত করার 'অপরাধ' যেন মানুষ হত্যার সমান! কিন্তু, খুব সাধারণভাবে চিন্তা করলেই আমরা বুঝতে পারব, এটা অনৈতিক কিছু তো নয়ই, বরং যুগ যুগ ধরে অর্জিত জ্ঞানের সংগ্রহ সকলের সাথে ভাগাভাগি করে নেওয়াটাই সবথেকে স্বাভাবিক ব্যাপার এবং এটাই এই মুহূর্তে এইসব বড় বড় রাঘব বোয়াল চোর-ডাকাতদের বিরুদ্ধে মোক্ষম প্রতিবাদ। লোভ আমাদের বোধশক্তি গ্রাস করে না ফেললে এই সত্য সকলেরই বুঝতে পারার কথা। কেন বুঝতে পারার কথা তোমরা নিশ্চয়ই জানো। কারণ, আমরা তো ছোটবেলা থেকেই শেয়ার করতে শিখেছি। বন্ধুদের সাথে মিলেমিশে খেলাধুলা করা, স্কুলে টিফিন সবাই মিলে খাওয়া, একসাথে বেড়াতে যাওয়া, বাসায় ভালো খাবার রান্না হলে প্রতিবেশীকে দিয়ে খাওয়া, বাড়িতে মেহমান এলে তাদের আপ্যায়ন করা এসবই তো স্বাভাবিক ব্যাপার। এগুলো করতে তো আমাদেরই বাবা-মা আমাদেরকে উৎসাহ দিয়েছেন। কাজেই, শেয়ার করার মধ্যে কোনো অন্যায় কিছু থাকতে পারে না। বিশেষ করে, যখন একদল ভদ্রবেশী ডাকাত অলরেডি আমাদের সবকিছুকে লুটে নিয়ে গিয়ে তাদের সিন্দুকে পুরে রেখেছে তখন তো নিজেরা নিজেরা বুদ্ধি করে ওইসব ছিনিয়ে আনা ছাড়া আর গতি কী?
আমরা শিখেছি লোভে পাপ, পাপে মৃত্যু। কিন্তু, তোমরা এখন দেখতে পাচ্ছো বড় বড় কর্পোরেশনগুলোর আসল কাজই হল লোভ করা। মজার মজার আবিষ্কারগুলোকে তারা জিম্মি করে রাখবে, আর, সেসব শিখে নিয়ে চড়া দামে যন্ত্রপাতি বানিয়ে আমাদের কাছে বেচবে। আর, আমাদের যে সামান্য পয়সা আছে সেগুলোও ছোঁ মেরে নিয়ে চলে যাবে! আর, আমাদের সব রাজনীতিকেরা তাদেরই রক্ষা করে চলবেন। কারণ, তাদের হাতে না রাখলে টাকাপয়সা পাওয়া যাবে না! এই রাজনীতিবিদেরাই তাই আমাদের সম্মতি উৎপাদন করার কাজটি করেন। আগেই বলেছি আমরা কেন রাজনীতিবিদদের কথা মেনে নিতে বাধ্য হই, কেন তাদেরকে আইনকানুন বানানোর অনুমতি দেই। আসলে সবই ডান্ডার ভয়, গুলির ভয়, জীবনের ভয়ে। নয়তো আমরা কি জানিনা এইসব মানুষগুলো আসলে লোভী? আমরা তো জানিই এই মানুষগুলো কর্পোরেশগুলোর সুবিধামতো আইনকানুন বানায়। এই আইনগুলোতে এক চুল পরিবর্তন করার কথা তুমি আমি কেউ তুললেই এইসব কর্পোরেশনের অংশীদারেরা বেজার হবেন। তারা রাজনীতিকদের বলবেন আমাদের উপর ডান্ডা মারতে, আমাদের নামে মামলা ঠুকে দিতে, আমাদেরকে জেলে পুরতে, গুম করতে বা গুলি করে পঙ্গু করে দিতে! এমন ঘটনা কিন্তু ইতিহাসে বহুবার ঘটেছে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধই কিন্তু সেরকমই একটা ঘটনা। যাহোক, সেই গল্প অন্য একদিন করা যাবে।

কিন্তু, তবুও অন্যায্য আইন মানার কোনো অর্থই হয় না। তাই, আইন ভাঙার সময় এসেছে। সময় এসেছে স্পষ্ট করে বলবার যে, মানুষের অর্জিত কোনো জ্ঞানকেই কোনো দানব কর্পোরেশন তাদের পুঁজি হিসেবে ব্যবহার করতে পারবেনা। জ্ঞান হবে উন্মুক্ত। তাই, পৃথিবীর সমস্ত তথ্যে আমাদের সকলের অবাধ বিচরণ থাকবে, বন্ধুদের সাথে ভাগাভাগি করে নেওয়ার অধিকার থাকবে। সব গোপন জ্ঞানভাণ্ডার উন্মুক্ত করতে হবে।

সারা দুনিয়ায় আমাদের মত চিন্তা বহু মানুষ করছেন। আমরা তাদের সাথে সংযুক্ত হব এবং এই দিনে-দুপুরে ডাকাতির বিরুদ্ধে সবাই একসাথে কাজ করব। নিজেরা নিজেদের সৃষ্টিগুলোকে সবার মধ্যে বিলিয়ে দিব আর যতো জ্ঞানভাণ্ডার ওদের দখলে আছে সবই বিভিন্ন কৌশলে উন্মুক্ত করে দিব। তুমিও নিশ্চয়ই আমাদের সঙ্গে যুক্ত হবে? কি, হবে না?

লেখকঃ ইয়ামিন রহমান ইস্ক্রা
শিক্ষার্থী, আইন বিভাগ
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

ফুটনোট: [1] এটা হল “গুপী বাঘা ফিরে এলো” সিনেমার গান। শুনতে চাইলে শুনে ফেল না এই লিংকে গিয়ে: https://youtu.be/yG63EhWL0F4
[2] বাটলার শ্যাফার (Butler Shaffer) বলছেন, সম্পত্তির ধারণা নিয়ে আমাদের মনের ভিতরে ধোঁয়াশা থাকার কারণেই সমাজে নানান ধরণের গণ্ডগোল লেগে গেছে, মানুষের স্বাধীনতাও খর্ব হয়েছে এবং আধুনিক সমাজ এক ধ্বংসাত্মক চেহারা নিয়ে আবির্ভূত হয়েছে। তিনি বলছেন, কিছুদিন আগেও ভূতুড়ে সম্পত্তির কোনো ধারণা ছিলো না। উদাহরণ দিতে গিয়ে বলছেন, শেকসপীয়র, দান্তে বা মিল্টনের মতো লেখকেরা, বাখ, বেথোফেন, মোৎজার্ট বা চাইকোভস্কির মতো সংগীতজ্ঞরা বা ভ্যান গগ, ভিঞ্চির মতো আঁকিয়েরা কপিরাইট কি জিনিস চিনতেই না। গুটেনবার্গ প্রেস বা মিশরের পিরামিডেওর কোনো পেটেন্টের বালাই নাই। তাহলে তো বলাই যায়, কিছুদিন আগেও মানুষ কপিরাইট, পেটেন্ট এইসব বিষয় জানতোই না কিন্তু দিব্যি গানবাজনা, আঁকাআঁকি, বড় বড় জিনিসপত্র নির্মাণ করেই গিয়েছিল। বুক রেফারেন্স: A Libertarian Critique On Intellectual Property : Butler Shaffer
[3] পুরো খবরটা এসেছে বাংলাট্রিবিউন নিউজপোর্টালে। এই লিংক থেকে পুরো খবরটা পড়ে দেখতে পারো: http://tinyurl.com/zyn7qws
[4] এই খামখেয়ালীপনার বিস্তারিত পড়তে হলে মার্গারেট চেনি’র (Margaret Cheney) এর Tesla: Man Out of Time (New York: Touchstone, 1981), পৃষ্ঠা ৩২-৩৫ পড়তে পারো।
[5] কপিরাইট, পেটেন্টের কারণে জ্ঞান-বিজ্ঞানের অগ্রগতি যে কমে যায় সে বিষয়ে বিস্তারিত জানতে তোমরা বাটলার শ্যাফার’র (Butler Shaffer) এর A Libertarian Critique of Intellectual Property বইটা পড়তে পারো।
[6] হ্যাঁ, কর্পোরেশনগুলো আইনের চোখে মানুষের মর্যাদা পেয়ে থাকে, যদিও এগুলো হল মানুষের তৈরি করা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। এই কর্পোরেশনগুলো নিজে নিজেই অনেক ধরণের কাজ করতে পারে, যেমন: জমি কিনতে পারে, মামলা ঠুকে দিতে পারে, বিভিন্ন ধরণের চুক্তি করতে পারে ইত্যাদি। আবার, এদের বিরুদ্ধে মামলাও করা যায়। খেয়াল করো, ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি আমাদের উপমহাদেশে ব্যবসা করতে এসে একেবারে স্বৈরাচারী শাসন চালিয়ে গেল। এই কাজটা সম্ভব হয়েছে তার কারণই হল, তাদের কোম্পানিটাকেই একটা মানুষ হিসেবে ধরা হয়েছে। যেন এক ব্যক্তিদানব! অথচ, এই কোম্পানির পেছনে সত্যি সত্যি যে মানুষেরা কলকাঠি নাড়লো,তারা থেকে গেল যাবতীয় প্রশ্নের বাইরে।
[7] গেরিলা ওপেন অ্যাকসেস মুভমেন্ট সম্পর্কে জানতে হলে তোমরা অধরা শ্রেয়সী অথই’র অনুবাদ করা “গেরিলা ওপেন অ্যাকসেস ম্যানিফেস্টো” টা চট করে পড়ে ফেলতে পারো ইন্টারনেটে। গেরিলা ওপেন অ্যাকসেস মুভমেন্টের ধারণা দিয়েছিলেন এ্যারোন সোয়ার্টজ (Aaron Swartz)। ভদ্রলোক ছিলেন একজন জিনিয়াস। কিন্তু, এই ভদ্রলোককে পাইরেসি’র দায়ে ৩৫ বছরের জেল দেওয়া হয়েছিল আর তার সব সম্পত্তি ক্রোকও করে নেওয়া হয়েছিল। এই যন্ত্রণা সইতে না পেরে উনি আত্মহত্যা করেন। তোমরা চাইলে এ্যারোন সোয়ার্টজের “Guerrilla Open Access Manifesto” লেখাটা পড়ে ফেলতে পারো ইন্টারনেট থেকে। আর, সোয়ার্টজকে নিয়ে বানানো ডকুমেন্টারি মুভি “Internet’s Own Boy” ও চট করে দেখে ফেলতে পারো।

কাকাড্ডার ডাকবাক্স

কাকাড্ডা ডট কমে সাবস্ক্রাইব করলে মেইলের মাধ্যমে আমাদের সব আপডেট পাবেন

kakadda logo

ঠিকানা:
আলোরমেলা, কিশোরগঞ্জ- ২৩০০।
জিগাতলা, ধানমন্ডি, ঢাকা - ১২০৫।

ইমেইল:
info@kakadda.com
k
akadda.info@gmail.com

ফোন:
+8801859 304232
+8801971 104077

স্যোশাল লিঙ্কস